Categories
My text

নারীর পর্দা কেমন করতে হবেঃ

আল্লাহ নারীকে ঢাকতে বললেন বুক আর বিশেষ দল ঢাকতে বলছে তাদের মুখ।

(“ঈমানদার নারীদেরকে বলুন, তারা যেন তাদের দৃষ্টিকে নত রাখে এবং তাদের যৌন অঙ্গের হেফাযত করে/সতীত্ব বজায় রাখে। তারা যেন, যা সাধারণতঃ প্রকাশমান, তা ছাড়া, তাদের সৌন্দর্য প্রদর্শন না করে”। তারা যেন তাদের বুকগুলি তাদের ‘খিমার’ দিয়ে ঢেকে রাখে। [ ২৪ঃ৩১] They shall cover their chests with their ‘khimar’.

২৪;৩১ নং আয়াতে উল্লেখিত ‘খিমার’ শব্দের প্রকৃত অর্থ কি?

বেশীরভাগ অনুবাদক হাদিসের দ্বারা প্রভাবিত হয়ে এই আয়াতে উল্লেখিত ‘খিমার’ শব্দের অনুবাদ করেছেন ‘ঘোমটা’ যার ফলে তারা মহিলদের মাথা ঢাকতে বা ঘোমটা দিতে বলেন। কেউ কেউ তো আবার মহিলাদের মুখও ঢাকতে বলেন!

কিন্তু সত্য হল এই যে ‘খিমার’ কথার সরল অর্থ হল ‘আবরণ’। আরবিতে যে কোন আবরণকে ‘খিমার’ বলা হয়। যেমন;- পর্দা একটি খিমার, টেবিল ক্লথ যা একটি টেবিলের উপরে পাতা থাকে, অর্থাৎ এটা টেবিলকে আচ্ছাদিত করে, এটি হল একটি খিমার, কম্বলকে একটি খিমার বলা যেতে পারে এবং আরও অনেক আছে।

একইভাবে, বিভিন্ন রকম পোশাক যেমন ব্লাউজ, কোর্ট, শাল, চাদর, শার্ট, বা অন্য যে কোন পোশাককে খিমার বলা যেতে পারে, কারণ এটি শরীরকে ঢেকে রাখে। খামার এবং খিমার একই রুটের শব্দ। খামার শব্দটি মাদকদ্রব্যের জন্য কুরআনে ব্যবহৃত হয়। যেহেতু মাদক দ্রব্য সেবনকারীর মনকে ইহা(মাদক দ্রব্য) আচ্ছাদিত করে রাখে, সেইজন্য খামার শব্দের ব্যবহার হয়।

আল্লাহ মহিলাদেরকে তাদের খিমার (ঢাকনা / পোশাক) ব্যবহার করতে বলছেন, যা একটি পোশাক, কোট, শাল, ব্লাউজ, স্ক্কারফ ইত্যাদি ব্যবহার করে তাদের বক্ষকে ঢেকে রাখতে হবে। তাদের মাথা, মাথার চুল বা মুখ ঢাকার কথা এখানে বলা হয় নি। যদি আল্লাহ্‌ চাইতেন যে মহিলারা যেন তাদের মাথা, মাথার চুল, মুখ ইত্যাদি ঢেকে রাখে, তাহলে তিনি খুব সহজেই তা বলতে পারতেন, কেননা আল্লাহ্‌র stock of word- এর কোন কমতি নেই।

বাংলায় ‘বক্ষ’, তার আরবি শব্দ হল ‘jayb’, যা কিনা এই আয়াতে ব্যবহৃত হয়েছে। কিন্তু ‘মাথা কিংবা মাথার চুল’ অর্থাৎ ‘ras(মাথা), shaar(চুল)’ এই সমস্ত আরবি শব্দ এখানে ব্যবহৃত হয় নি।

কাজেই, এই আয়াতের আদেশ একদম পরিস্কার অর্থাৎ ‘বক্ষকে ঢাকতে হবে’ এবং শুধুমাত্র বক্ষকে ঢাকার নির্দেশ এটাও প্রমাণ করে যে বক্ষের উপরের অংশ(গলা, মুখ, মাথা, চুল) ইত্যাদিকে ঢাকার কোন বাধ্যবাধকতা নেই।

এই ২৪;৩১ নং আয়াতে উল্লেখিত “যা সাধারণতঃ প্রকাশমান,” বলতে কি বোঝায়?

২৪;৩১ নং আয়াতে ‘জিনাত’ শব্দের অর্থ বোঝায় ‘সজ্জা বা ভূষণ’ যা মহিলদের সৌন্দর্য বাড়ায়। এটা সত্য যে মহিলাদের মাথার চুল তাদের সৌন্দর্য বাড়ায়। অন্যান্য অংশও আছে যেমন;- মহিলাদের চোখ, অধর(ঠোঁট) ইত্যাদি ইত্যাদি। কাজেই তাহলে মহিলারা কি তাদের মুখসহ সমস্ত শরীর ঢেকে রাখবে?

২৪;৩১ আয়াতে আল্লাহ্‌ কিন্তু তা বলেন নি। আল্লাহ্‌ বলেছেন যে মহিলাদের ‘সাধারণত প্রকাশমান সৌন্দর্য’ যেটা তারা সেটা দেখাতে পারে।
বিশেষ একটি জামাত এখন নারীর এ পর্দাকে আরো জটিল করে আল্লাহর বিধান পরিত্যাগ করে নিজেদের মতাদর্শকে প্রতিষ্ঠিত করে বসেছেন।
নারীর পর্দা বিষয়ক এ আলোচনায় যদি কোন দ্বীমত থাকে দলিল সহ অবহিত করার বিনীত অনুরোধ জানাচ্ছি।

হিজাব/পর্দা সম্পর্কে আল্লাহ কি বলেন আর ইসলামি সমাজে কি ভাবে পরিপালন করে থাকে।

আর মুমিন নারীদেরকে বল, যেন তারা তাদের দৃষ্টিকে সংযত রাখবে এবং তাদের লজ্জাস্থানের হিফাযত করে। আর যা সাধারণত প্রকাশ পায় তা ছাড়া তাদের সৌন্দর্য তারা প্রকাশ না করে। তারা যেন তাদের ওড়না দিয়ে বক্ষদেশকে আবৃত করে রাখে। আর তারা যেন তাদের স্বামী, পিতা, শ্বশুর, নিজদের ছেলে, স্বামীর ছেলে, ভাই, ভাই এর ছেলে, বোনের ছেলে, আপন নারীগণ, তাদের ডান হাত যার মালিক হয়েছে, অধীনস্থ যৌনকামনামুক্ত পুরুষ অথবা নারীদের গোপন অংগ সম্পর্কে অজ্ঞ বালক ছাড়া কারো কাছে নিজদের আভরন প্রকাশ না করে। আর তারা যেন নিজদের গোপন আভরন প্রকাশ করার জন্য সজোরে পদচারণা না করে। হে মুমিনগণ, তোমরা সকলেই আল্লাহর নিকট তাওবা কর, যাতে তোমরা সফলকাম হতে পার। (সুরা নূর ৩১)

আল্লাহ আরও বলেন, “হে নবী! আপনি আপনার পত্নীগণকে ও কন্যাগণকে এবং মুমিনদের স্ত্রীগণকে বলুন, তারা যেন তাদের চাদরের কিয়দংশ নিজেদের উপর টেনে নেয়। এতে তাদেরকে চেনা সহজ হবে। ফলে তাদেরকে উত্যক্ত করা হবে না। (সুরা আহযাব- ৫৯)

এখন প্রশ্ন হলো আমাদের সমাজ আপাদমস্তক আবৃতকারী পর্দাপ্রথা নারীদের জন্য নির্ধারণ করে দিয়েছেন সেই পর্দা আল্লার বিধান কোর’আন, মোতাবেক কতটুকু পালনিয়?

নারীদের স্বাভাবিক প্রকাশমান অঙ্গসমূহ বলতে কি বোঝায়? হাত, পা, মুখমণ্ডল খোলা রাখতে বলা হয়েছে কি?

যেন তাদেরকে চিনতে পারা যায়!! হাত, পা, নাক, মুখ এক কথায় আপাদমস্তক ঢেকে রেখে চেনার কৌশলটা আসলে কি?

তাহলে প্রচলিত পর্দা প্রথা তাহলে কোথা থেকে এলো?

হজ্জের সময়ও বা হিজাবের বিধানের ভিন্নতা কেন?

++++++++++++-

Fateha Khatun
ইমাম আবু হানিফা রঃ এর মতে মহিলাদের হাত ও মুখ খোলে রাখা জায়েজ। ( কিতাবুল আছল : ২য় খন্ড : ২৩৫-২৩৬ )।
ইমাম মালিক রঃ এর মতে মহিলাদের মুখ ও হাত খোলে রাখা জায়েজ। ( কিতাবুল মুদাওন্নাহ : ২য় খন্ড : ৩৩৪- ৩৩৫) ।
ইমাম শাফি রঃ এর মতে মহিলাদের মুখ ও হাত খোলে রাখা জায়েজ। ( কিতাবুল উম্ম : ১০৯) ।
এছাড়া অসংখ্য ইমাম ও আরব বিশ্বের ৯০% উলামায়ে কেরামগণের মতে মহিলাদের মুখ ও হাত খোলে রাখা জায়েজ।
و لا يبدين زينتهن إلا ما ظهر منها
মহিলারা যাতে তাদের সৌন্দর্য প্রকাশ না করে। তবে যা এমনিতেই প্রকাশ পেয়ে যায় সেটা ব্যাতীত অর্থাৎ মুখ ও হাত।
অধিকাংশ সাহাবী, তাবেয়ী ও ইমামদের মতে إلا ما ظهر منها দ্বারা উদ্দেশ্য হলো হাত ও মুখ।
عن عائشة رضي الله عنها: أن أسماء بنت أبي بكر دخلت على رسول الله ﷺ وعليها ثياب رقاق؛ فأعرض عنها رسول الله ﷺ وقال لها: يا أسماء إن المرأة إذا بلغت المحيض، لم يصلح أن يرى منها إلا هذا وهذا، وأشار إلى وجهه وكفيه.
আয়েশা রাঃ থেকে বর্ণিত আছে যে, আসমা রাঃ আল্লাহর রাসুলের সামনে আসলেন আর তিনি পাতলা কাপড় পরিধেয় ছিলেন। তখন আল্লাহর রাসুল তার থেকে মুখ ফিরিয়ে নিলেন। এবং বললেন হে আসমা যখন কোন মেয়ে প্রাপ্ত বয়স্ক হয় তখন তার এটি, এটি ছাড়া কোন কিছুই দেখা জায়েজ নেই। তিনি এটি ও এটি বলে মুখ ও হাতের দিকে ইশারা করলেন।( আবু দাউদ)
جاءت امرأة حسناء تسأل الرسول صلى الله عليه وسلم ، وكان الفضل رديفه في حجة الوداع ، فحوَّل النبي صلى الله عليه وسلم وجه الفض
বিদায় হজ্জের সময় সুন্দরী এক মহিলা সাহাবী আল্লাহর রাসুলের সামনে আসলেন এবং সরাসরি তাকে জিজ্ঞাসা করতেছিলেন। আর মহিলাটি মুখ খোলা অবস্থায় ছিলো কিন্তু আল্লাহর রাসুল তাকে কিছু বলেন নিই। অথচ আল্লাহর রাসুল কাউকে হারাম কাজ করতে দেখলে সরাসরি নিষেধ করতেন বা দোষারোপ করতেন।
বর্রমান যুগে মালিকি মাযহাবের আল্লামা মুহাম্মদ হাসান দাদু ও আল্লামা মাহফুজ ইব্রাহিম ফাল বলেন অধিকাংশ সাহাবী, তাবেয়ী ও ইমামদের মতে মহিলাদের মুখ ও হাত খোলে রাখা জায়েজ।
দেওবন্দি, হান্বলি, সালাফি ও বিরাট সংখ্যক জামাত মনোভাব সম্পন্ন আলেম ছাড়া বিশ্বের প্রায় সকল আলেমদের মতে মহিলাদের মুখ ও হাত খোলে রাখা জায়েজ।

By Ekramul hoq

I am A.K.M Ekramul hoq MA.LLB. Rtd Bank Manager & PO of Agrani Bank Ltd. I am interested writing and reading. Also innovator of history of Islam. Lives in Bangladesh, District Jamalpur.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Verified by MonsterInsights